Preview
প্রশ্ন করুন
রিলেটেড কিছু বিষয়

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

Preview ঘন ঘন ঢেঁকুর উঠলে কি করা উচিত ?

*স্বাস্থ্যতথ্য* *সুস্থ্যথাকা* *ফিটনেস* *হেলথটিপস* *ঢেঁকুর* *ঢেকুর*
( ১৮ টি উত্তর আছে )

( ৫৭,২০৩ বার দেখা হয়েছে)

উদয়  

মহাগুরু

ঢেঁকুর ওঠা অ্যাসিড রিফ্লাক্সের কারণেই হয়ে থাকে। তবে ঢেঁকুর যদি টক ঢেঁকুর হয়ে থাকে এবং এর কারণে পেটভার পেট ফুলতে থাকা গা-বমি বা বমি ইত্যাদি উপসর্গের এক বা একাধিক দেখা দেয় বুঝতে হবে ডিসপেপসিয়া হয়েছে ৷যাই হোক, জেনে নিন ঘন ঘন ঢেঁকুর উঠলে কি করবেন: প্রথম ওষুধ হলো পানি, হাতের কাছে পানি থাকলে পান করতে থাকুন ঢগঢগ করে ৷তবে যদি হাতের কাছে পানি না থাকে তবে আঙ্গুলে চেপে নাক বন্ধ করে শ্বাস নেয়ার চেষ্টা করবেন আর এভাবে ৫ থেকে ৭ সেকেন্ড থেকে নাক ছেড়ে দিবেন ৷যাদের খেতে বসলেই ঢেঁকুর উঠে, তারা খাওয়ার আগে পানি পান করে নেবেন এক গ্লাস, তাহলে দেখবেন খাওয়ার সময় বা পরে ঢেঁকুরের সমস্যা কম হবে ৷যারা দ্রুত খায় তারা সাধাণরত খাবার ঠিক মতো চিবিয়ে খায় না। খাবার না চিবিয়ে দ্রুত খেলে খাবারের ফাঁকে বাতাস ঢুকে খাদ্যনালীতে আটকে যেতে পারে। এর ফলাফল হলো বিরক্তিকর ঢেঁকুর। তাই গিলে না খেয়ে চিবিয়ে খাওয়ার অভ্যাস করুন এবং খাবেন অল্প পরিমাণে। খাওয়ার পর একটু হাঁটুন। খাওয়ার পর পর টেলিভিশন দেখতে বসবেন না। মাত্র ১০ মিনিট হাঁটলেও আপনার পাকস্থলী বায়ুশূন্য হয়ে যাবে। রাতের পাকস্থলীর ওপর চাপ দিয়ে কিংবা ডানদিকে কাত হেয় শুয়ে পড়ুন। এতে খাবার হজম হবে ভালোভাবে। পেটে গ্যাস জমবে না। অনেকে আবার প্রচলিত প্রথায় আক্রান্ত ব্যক্তিকে চমকে দিয়েই ঢেঁকুরের সমস্যা সামলে দেন। যদিও এর সাথে চিকিৎসাবিজ্ঞানের তেমন কোনো সংযোগ নেই, তবুও ব্যাপারটা কিন্তু বেশ লোমহর্ষক। এপ্লাই করে দেখতে পারেন। তবে চমক কিন্তু চমকের মতোই হতে হবে, পাতানো হলে চলবে না। আদার ঝাঁঝালো গন্ধে সমস্যা না থাকলে রোজ দিনে দু-তিন বার কয়েক কুচি আদা চিবোন। চাইলে, একটু মধুও মিশিয়ে নিতে পারেন। আর সমস্যা যদি একেবারে নিয়মিত হতে থাকে, তো জিরা খোলায় ভেজে নিন। এরপর এটাকে গুড়িয়ে নিন। এক গ্লাস উষ্ণ পানিতে দু’চামচ মিশিয়ে রোজ খান। অথবা আপনার রোজকার ডায়েটে অবশ্যই রাখুন টক দই। টক দই ঢেকুর দূর করে দ্রুততম সময়ে। এভাবে জিরা খেতে সমস্যা হলে তরকারিতে মৌরি দিয়ে ফোড়ন দিন। যাই খান সেই আপনার ঢেকুর আটকাবে।গরম পানির সঙ্গে পুদিনা পাতা ফুটিয়ে খেতে পারেন। রোজ পেঁপে খেলে হজম ক্ষমতা এমনিতেই চড়চড় করে বাড়ে। অকারণ গ্যাস তৈরি হয় না। ঘনঘন ঢেকুরও আর ওঠে না। দীর্ঘদিন এই সমস্যা ভুগছেন, যদি ব্যাপারটা এরকম হয় তাহলে পাতিলেবুর রসে ১/৪ চা চামচ বেকিং সোডা মিশিয়ে নিয়ম করে খেতে পারেন।

যারিন তাসনিম  সুকন্যা

মহাগুরু

যদি ইনস্ট্যান্ট হাতের কাছে পানি না থাকে তবে আঙ্গুলে চেপে নাক বন্ধ করে শ্বাস নেয়ার চেষ্টা করবেন আর এভাবে ৫ থেকে ৭ সেকেন্ড থেকে নাক ছেড়ে দিবেন l ম্যাজিকিলি থেমে যাবে l কিন্তু পানিপানের ব্যবস্থা থাকলে এটা করবেন না l ধন্যবাদ

Lutfun Nessa  সবই অনিশ্চিত, মরিব এটা নিশ্চিত:(

মহাগুরু

যেখানে সেখানে হঠাৎ করে ঢেকুর তোলাকে সাধারণত কটু চোখেই দেখা যায়। আবার এমনও সংস্কৃতি রয়েছে যেখানে খাবারের পর ঢেকুর তোলা সুস্বাদু খাবার ও পেটপুরে খাওয়ার লক্ষণ প্রকাশ করে। তবে মানুষের মাঝে বিকট শব্দে ঢেকুর তোলা দারুণ অস্বস্তিকর হয়ে ওঠে। ঢেকুর তোলা দেহের সহজাত কাজ। মাঝে মাঝে এটা স্বাস্থ্যের জন্যে ভালো। কিন্তু ঘন ঘন হওয়াটা কিন্তু চিন্তার বিষয়। এটা দেহের ভেতরের কোনো সমস্যা নির্দেশ করে। এখানে জেনে নিন, ঘন ঘন ঢেকুর ওঠার কারণ। 

এসিড রিফ্লাক্স : অতিরিক্ত ঢেকুর কিন্তু এসিড রিফ্লাক্স কিংবা পাকস্থলীতে আলসারের লক্ষণ প্রকাশ করে। এতে বুকের মধ্যে এক ধরনের অস্বস্তি তৈরি হয়। এ ছাড়া বেশি মাত্রায় খাওয়া, স্থূলতা এবং অতি মসলাদার খাবারে ঢেকুরে ওঠে। 

ক্যান্সারের আগে দেহের পরিবর্তন:এটা মারাত্মক বিষয় হতে পারে। কোষে ক্যান্সার গঠনের সম্ভাবনা দেখে দিলে বা এর কারণে দেহে কোনো পরিবর্তন আসলে বেশি বেশি ঢেকুর উঠতে থাকে। 

পেটে অস্বস্তিকর অবস্থা: অন্ত্রনালীতে কোনো সমস্যা হলে ঢেকুর ওঠে বার বার। অন্ত্রনালী কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হলেও এমনটা ঘটে। আবার কেউ আইবিএস (ইরিটেবল বাওয়েল সিনড্রোম) দেখা দিলে অস্বাভাবিকভাবে ঢেকুর ওঠে। 

হিয়াতাল হার্নিয়া: এটা এমন এক অবস্থা যখন পাকস্থলীর ওপরের অংশ ডায়াফ্রামের মধ্যে দিয়ে স্ফীত হয়ে ওঠে। ডায়াফ্রাম এমন এক পেশি যা পেট ও বুকের মধ্যে থাকে। হিয়াতাল হার্নিয়া হলে ঠিক বোঝা যায় না। তবে ঘন ঘন ঢেকুর উঠলে লক্ষণ প্রকাশ পায়। 

খাবার:  বিশেষ কিছু খাবার এবং জীবনযাপন এ সমস্যায় জর্জরিত করতে পারে। বাঁধাকপি, ফুলকপি, ব্রোকোলি, শীম এবং কার্বোনেটেড পানীয়তে ঢেকুর ওঠে। কাজেই যারা খুব বেশি পেরেশানিতে পড়ে যান, তারা এসব খাবার থেকে একটু সাবধান থাকবেন। 

নিরন্তর শুভ কামনায় .............. ধন্যবাদ দীপ্তি:)

সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া 

সরকার মোমেনূর রহমান  ভালোবাসাকে ভালোবাসি

মহাগুরু

দুই/এক চামচ চিনি মুখে নেওয়ামাত্রই না খেয়ে অনেকক্ষণ মুখে রেখে দিলে ঢেঁকুর উঠা বন্ধ হয়ে যায় !!

রনি  ভালবাসতে পারি কিন্তু কিভাবে ভালবাসা পেতে হবে জানি না।

বিশারদ

বেশি করে পানি পান করতে হবে। খুব বেশি হলে কোন গ্যসের বড়ি খেতে পারেন।

সমুদ্র তীর  সমুদ্র তীর এ হাটছি একা ...

জ্ঞানী

"ঢেঁকুর এর মাথা খাই ".. উচ্চারণ করে এক ঢোকে কিসু পানি পান করুন . এই ভাবে তিন বার পানি পান করুন ..

কাজী আসাদ  অতি সাধারন একটা মানুষ

জ্ঞানী

বেশি করে পানি পান করুন সব ঠিক হবে .....

সাহুলী  স্বাধীনচেতা ও আত্মপ্রত্যয়ী

জ্ঞানী

হাতের কাছে খালি প্যকেট থাকলে মুখটা প্যকেটের মধ্যে নিয়ে স্বাস নিন.দেখবেন কয়েক মিনিটের মধ্যে ঠিক হয়ে গেছে.

তাপস রহমান।  চলার পথে -------------- লক্ষ আমার অটুট , সমলোচনা আমার প্রেরনা , পরিশ্রম আমার শক্তি , ধৈর্য আমার নিয়ন্ত্রক , সততা আমার সাহস , ভালোবাসা আমার উপার্জন ।

বিশারদ

চিনি খাওয়া উচিত বলে আমি জানি

বলরাম BP  

পন্ডিত

বেশি করে পানি পান করুন সব ঠিক হবে =====

Mohammad Shahzaman  আমি এক অনন্য মানুষ আমার আত্মিক ক্ষমতা অসীম সারা পৃথিবী আমার কর্মক্ষেত্র যেখানে দরকার সেখানেই যাবো....

বিশারদ

বেশি বেশি বড় বড় নিঃশ্বাস নিন এবং নাসায়ন ব্যায়াম করুন

মেঘের নীল  অস্থির পাবলিক

গুণী

বেশি করে পানি পান করুন সব ঠিক হবে যাবে.....!! পাশে যদি পানি থাকে তবে বিকল্প পদ্ধতি না নেওয়াই শ্রেয়।।

J F Olloin  

গুণী

বেশি পানি খেতে না খেতে পারলে, বেশি বেশি বড় বড় নিঃশ্বাস নিন। :-) be happy

Feroz-Al-Mamun  

গুণী

পানি পান করুন এবং শ্বাস বন্ধ করার চেষ্টা করুন কিছু টাইম

টেঁকুর উঠলে বেশি বেশি পানি পান করতে হবে। আল্লাহ ভরসা, সব ঠিক হয়ে যাবে।


অথবা,