Preview
প্রশ্ন করুন
রিলেটেড কিছু বিষয়

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

Preview রুই মাছের কয়েক পদের রান্নার রেসিপি জানতে চাই ।

*রুইমাছ* *রুই* *মাছেররেসিপি* *রেসিপি*
( ৫ টি উত্তর আছে )

( ১৭,৮৬৮ বার দেখা হয়েছে)

আড়াল থেকেই বলছি  সীমানাহীন গন্তব্যে এখনো হাঁটছি একাকিত্বের লাঠি হাতে ....

মহাগুরু

রুই মাছ রান্নার রেসিপি: উপকরনঃ রুই মাছ – ৬ টুকরা রসুন বাটা – ১/২ চা চামচ আদা বাটা – ১/২ চা চামচ জিরা বাটা – ১/৩ চা চামচ ধনে গুঁড়া – ১/২ চা চামচ পেঁয়াজ কুচি – ৩ টেবিল চামচ মরিচ গুঁড়া – ১/২ চা চামচ হলুদ গুঁড়া – ১/৪ চা চামচ টমেটো ফালি করা – ১ কাপ কাঁচা মরিচ – ৩/৪ টা (ফালি করা) ধনেপাতা কুচি – ২ টেবিল চামচ তেল – ২ টেবিল চামচ লেবুর রস – ১ চা চামচ লবণ – পরিমানমতো পানি পরিমানমতো (৩ কাপ পরিমাণ) পদ্ধতি: ১।মাছের টূকরাগুলো ধুয়ে লবণ ও হলুদ মেখে তেলে হালকা করে ভেজে নিন। ২। অন্য একটি পাত্রে মাছ ভাজার গরম তেল দিয়ে পেয়াজ কুচি দিয়ে নেড়ে ভাজুন। ৩। পেয়াজ বাদামী রঙ ধারণ করলে চুলার আঁচ কমিয়ে দিন। ৪। এবার আদা-রসুন বাটা, হলুদ-মরিচ গুঁড়া, জিরা বাটা, ধনে গুঁড়া এবং লবণ দিয়ে কষাতে থাকুন। ৫। সব মশলা ২/৩ মিনিট কষানো হলে মাছের ভাজা টূকরাগুলো মশলায় ছেড়ে দিন। ৬। এবার তিন কাপ পানি দিয়ে আবার হালকা করে নেড়ে ঢেকে দিয়ে রান্না হতে দিন। এসময় চুলার আঁচ স্বাভাবিক থাকবে। ৭। পাঁচ মিনিট রান্না হলে ঢাকনা তুলে টমেটো ও কাঁচামরিচ দিয়ে আরো ১০মিনিট রান্না করুন। ঝোল একটু ঘন হবে। ৮। ঝোল-ঝোল অবস্থায় ধনে পাতা কুচি ছড়িয়ে দিয়ে নামিয়ে ফেলুন।

ইমরান নাজির লিপু  স্বপ্নের পিছনে দৌড়াচ্ছি...দেখি ছুতে পারি কিনা !

গুরু

উপকরনঃ রুই মাছ (বড় ৪ টুকরা), তেল (পরিমান মতো- কম তেলই ভাল) পেঁয়াজ ( কমপক্ষে বড় ২টা- পেঁয়াজ বেশী হলে ভাল লাগে-পাতলা স্লাইস করে কাটা), রসুন (১ চামচ বাটা/কুচি/গ্রেটেড), আদা (অপশনাল)(হাফ চামচ বাটা/কুচি/গ্রেটেড), কাঁচা মরিচ (লম্বা করে চেরা-২ টা), মরিচ গুড়া (হাফ চামচ- একটু কম দিলে ভাল), হলুদ গুড়া (০.৬৫ চামচ), জিরা গুড়া(হাফ চামচ), ধনিয়া গুড়া(হাফ চামচ), এলাচ (১টা), মাছ মসলা (০.৭৫ চামচ), লবন (১.৫ চামচ-স্বাদ অনুযায়ী)। প্রনালীঃ ১। মাছ ভাল করে ধুয়ে (বড় টুকরা হাফ করে নিতে পারেন, উল্টানোর সুবিধার্থে) পানি ঝরিয়ে হলুদ (হাফ চামচ), মরিচ গুরা (০.২৫ চামচ), লবন (১ চামচ) দিয়ে মাখান। ২। এবার পেঁয়াজ, মরিচ, আদা, রসুন কেটে ফেলুন। ৩। নন স্টিক প্যান ধুয়ে চুলায় দিয়ে পানি শুকান। এরপর তেল ঢেলে দিন। হাল্কা তেলে মাছ ভাল করে ভাজুন (সাবধান- তেল ছিটে গায়ে লাগতে পারে)। ৪। ওই প্যানেই পেঁয়াজ, মরিচ, রসুন, আদা দিন। হাল্কা আঁচে নাড়তে থাকুন। পেঁয়াজ প্রায় পোড়া পোড়া (বাদামী) হয়ে গেলে বাকি সব মসলা দিয়ে দিন। নাড়তে থাকুন ২-৩ মিনিট। একটু পানি দিন। মসলা কসান। ৩-৪ মিনিট। ৫। মাছ দিয়ে দিন। মাছে মসলা লাগাতে চেষ্টা করুন। যুদ্ধ করলে মাছ ভেঙ্গে যাবে। আরও একটু পানি দিন যেন মাছ তিন-চতুর্থাংশ ডুবে যায়। ঢেকে দিন। পানি কমে শুকনা শুকনা হলে নামিয়ে নিন। ব্যস হয়ে হয়ে রুই মাছের দারুণ একটি রেসিপি। তথ্য ও ছবি : সামু ব্লগ থেকে নেয়া

নওরিন জাহান  শান্ত-শিষ্ঠ আর চুপচাপ মেয়ে

বিশারদ

রুইমাছের ব্যঞ্জন : উপকরণ: রুই মাছ টুকরা করা ৫০০ গ্রাম। রসুনবাটা ১ চা-চামচ। আদাবাটা আধা চা-চামচ। পেঁয়াজবাটা আধা কাপ। টমেটো পেস্ট করা আধা কাপ। ধনেপাতার কুচি ২ টেবিল-চামচ। কাঁচামরিচ আস্ত ৪-৬টি। হলুদ ও মরিচগুঁড়া ১ টেবিল-চামচ করে। জিরাগুঁড়া ১ চা-চামচ। লবণ স্বাদ অনুযায়ী। তেল ও পানি পরিমাণমতো। পদ্ধতি: প্রথমে মাছের টুকরাগুলো ভালো করে ধুয়ে নিন। তাতে হলুদ ও লবণ মাখিয়ে হালকা করে দুই পিঠ ভেজে নিতে নিন। একটি কড়াইয়ে তেল গরম করে তাতে একে একে সব বাটা মসলা স্বাদ অনুযায়ী লবণ, গুঁড়ামসলা ও টমেটো দিয়ে ভালো করে কষিয়ে তাতে ভাজা রুই মাছ, ধনেপাতার কুচি, আস্ত কাঁচামরিচ, জিরাগুঁড়া ও পরিমাণমতো পানি দিয়ে ঢেকে ২০ মিনিট রান্না করুন। যখন দেখবেন মাছের মসলা ঘন হয়ে আসছে তখন সেটি চুলা থেকে নামিয়ে সার্ভিং ডিসে ঢেলে পরিবেশন করুন রুই টমেটো ভুনা। চাইলে উপরে ধনেপাতার কুচি ছড়িয়ে পরিবেশন করতে পারেন।

★ছায়াবতী★  ছায়ামানবী ...ছায়া ছায়া অনুভবে

মহাগুরু

রুই ফ্রাই যা লাগবে : রুই মাছের পেটির বড় চার টুকরা, জিরা গুঁড়া হাফ চা চামচ, মরিচ গুঁড়া এক চা চামচ, লবণ স্বাদ অনুযায়ী, আদা বাটা হাফ চা চামচ, রসুন বাটা হাফ চা চামচ, সয়াসস এক টেবিল চামচ, বেকিং পাউডার হাফ চা চামচ, ময়দা এক টেবিল চামচ, বেসন দুই টেবিল চামচ এবং ভাজার জন্য তেল পরিমাণমতো। যেভাবে করবেন : মাছের টুকরাগুলো ভালো করে ধুয়ে নিন। পানি ঝরিয়ে রাখুন। মাছে আদা ও রসুন বাটা, সয়াসস, স্বাদ অনুযায়ী লবণ মাখিয়ে রাখুন প্রায় আধাঘণ্টা। ময়দা, বেসন, সামান্য লবণ এবং বেকিং পাউডার পরিমাণমতো পানি দিয়ে গুলিয়ে একটি ঘন মিশ্রণ তৈরি করে কিছুক্ষণ রাখুন। কড়াইয়ে তেল গরম করুন। মাছগুলো এক এক করে ঘন মিশ্রণে ডুবিয়ে গরম তেলে মচমচা করে ভেজে তুলুন। সাজিয়ে পরিবেশন করুন। মাছের কোপ্তা (খালিছা) উপকরণ: কাঁটাছাড়া ছোট রুই মাছ ১ কেজি (ফলি বা কার্পজাতীয় মাছ দিয়েও করা যায়)। আধা চা-চামচ শুকনা মরিচের গুঁড়া, ১ চা-চামচ হলুদের গুঁড়া, ধনে গুঁড়া ১ চা-চামচ, জিরাবাটা, আদাবাটা ও রসুনবাটা ১ টেবিল-চামচ, কাঁচা মরিচ কুচি ৪টি, পেঁয়াজ ১ টেবিল-চামচ, ছোট এলাচ, দারচিনি, লবঙ্গ গুঁড়া ১ টেবিল-চামচ, লবণ অল্প, পেঁয়াজ বেরেস্তা ১ কাপ, ময়দা ২ টেবিল-চামচ, তেল পরিমাণমতো। প্রণালি: আস্ত মাছ শিলপাটায় বেটে ভেতরের অংশ বের করতে হবে। ওপরের চামড়া আলাদা করে, কাঁটা ছাড়িয়ে নিন। এবার কাঁটাছাড়া মাছের সঙ্গে সব মসলা মেখে ময়ান করুন। এবার মাছের চামড়ায় মাখানো মাছ রেখে হাত দিয়ে মাছের আকৃতি তৈরি করুন। এবার তেল দিয়ে ভালোভাবে ভেজে নিন। সরষে রুই যা লাগবে রুই মাছ ৫০০ গ্রাম, সরষের তেল ১৫০ গ্রাম, হলুদ আধা চা চামচ, মরিচগুঁড়ো আধা চা চামচ, সরষে বাটা ২ টেবিল চামচ, কালোজিরা ১ চিমটি, কাঁচামরিচ ৬টি, লবণ স্বাদ অনুযায়ী। যেভাবে করবেন সরষে দুটি কাঁচমরিচ দিয়ে বেটে দু'কাপ পানিতে গুলে রাখুন। কাঁচা মরিচ দুটি চিরে নিন। কড়াইতে তেল গরম করে মাছ লবণ-হলুদ মাখিয়ে ভেজে তুলে নিন। এবার কড়াইয়ে বাকি তেল দিয়ে গরম করে কালোজিরা ও দুটি চেরা মরিচ ফোঁড়ন দিন। মরিচ ও হলুদ অল্প সরষে গোলা পানি দিন। পরিমাণমতো লবণ ও চিনি দিন। ঝোল ফুটে উঠলে ভাজা মাছ দিয়ে ওপরে কাঁচা সরষের ছড়িয়ে দিন। ঝোল ঘন হলে ধনেপাতা কুচি ছড়িয়ে নামিয়ে নিন।

দীপ্তি  আমি শান্ত, সাম্য, আহ্লাদী, মিশুক, পরিপাটি, গোছালো, খুব নরম মনের একজন সাধারণ মানুষ :)

মহাগুরু

ভাজা রুই, মাছের তরকারি, দোপেঁয়াজা, মুড়োঘন্ট, কালিয়া সকল বাঙালির অতি প্রিয়। বিভিন্ন সামাজিক উত্সবে রুইমাছের কদর ও ব্যবহার অধিক হয়ে থাকে।

 
কালিয়া শব্দের ভেতর লুকিয়ে আছে "কালো" শব্দটি।  যে রান্নাটির ঝোল একটু গাড় এবং অল্প আঁচে কষাতে কষাতে কালচে রং ধারণ করে এবং পুরো রান্নাটায় একটা মশলা ভাজাড় ফ্লেভার থাকে, সেটিই আসলে কালিয়া।  (যেমন: আপনারা গরুর মাংসের কালো ভুনা খান, ঠিক তেমনটাই) তবে কালিয়া শব্দটি বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই বড় মাছে যেমন: রুই, কাতলা বা কার্প জাতীয় মাছের সাথেই বেশি যায়।

 রুই মাছের মাছের কালিয়ার রেসিপিঃ 

কালিয়া তৈরি করতে যা যা লাগবে:-
 # রুই মাছ ১ কেজি 
# পেঁয়াজ কুঁচি কোয়ার্টার কাপ 
# পেয়াঁজ বাটা ২ টেবিল চামচ 
# আদা বাটা ২ টেবিল চামচ 
# জিরা বাটা ১ চা চামচ বা জিরা গুড়া ২ চা চামচ  
# হলুদ গুড়া ২ চা চামচ 
# মরিচ গুড়া ২ টেবিল চামচ
# গরম মশলা পরিমাণ মতো 
# টমেটো সস ২ টেবিল চামচ 
# জয়ফল, জয়ত্রী গুড়া ১ টেবিল চামচ 
# কাঁচা মরিচ ১০টি 
# লবণ স্বাদ অনুযায়ী 
# চিনি 
# তেল ও পানি রান্নার জন্য 
# সামান্য ঘি 
#তেজপাতা ২টি
#টকদই, কিশমিশ l 

প্রণালী: 

  • মাছ ধুয়ে হলুদ-লবণ মাখিয়ে কড়া করে ভেজে নিন। 
  • তেল গরম করে গোটা জিরে ও তেজপাতা ফোড়ন দিয়ে সব ধরনের বাটা মশলা, লবন, মরিচের গুড়া, হলুদের গুড়া দিয়ে মেখে চুলায় বসিয়ে দিতে হবে।
  • ভালোভাবে কষতে হবে। যখন পানি শুকিয়ে আসবে তখন গুড়া মসল্লা, চিলি সস, টমেটো সস দিয়ে ভালো করে পোড়া পোড়া করে কষতে হবে। যেনো মশলাটা কালো হয়ে যায়। তখন সামান্য গরম পানি দিয়ে অল্প আঁচে দমে রাখতে হবে। 
  • মাঝে মাঝে নেড়ে দিতে হবে। যখন মশলা নরম হয়ে আসবে বা তেল ভেসে উঠবে তখন ভাজা মাছ কাঁচা মরিচ ও সামান্য জিরার গুড়া দিয়ে নামিয়ে ফেলতে হবে। উপরে সামান্য ঘি দিয়ে নামিয়ে নিন। 
  • চাইলে আলু ব্যবহার করতে পারেন, এক্ষেত্রে আলু লম্বা শেপে কেটে নিয়ে লবন ও হলুদ মেখে ভেজে নিতে হবে। তারপর মশলা কষলে মাছ দেবার আগে ভাজা আলু মিশিয়ে দিতে হবে।
  • কাতল  মাছের কালিয়াও একই উপকরণ ও একইভাবে রাধতে হবে।


অথবা,