Preview
প্রশ্ন করুন
রিলেটেড কিছু বিষয়

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

Preview ঈদে মায়ের জন্য ভিন্নধর্মী কি ধরনের গিফট কেনা যেতে পারে?

*গিফটআইডিয়া* *মায়েরজন্যগিফট* *গিফট* *ঈদউপহার*
( ১২ টি উত্তর আছে )

( ৮৩৪ বার দেখা হয়েছে)

ইমরান  ভালো মানুষ মনে হয়... কনফিউসন এ আছি...

মহাগুরু

সবচেয়ে ভালো হয়, মায়ের সবচেয়ে দরকারি কোন জিনিস দরকার সেটা খেয়াল করুন। তারপর সেটি কনে দিন। দেখবেন মা সবচেয়ে বেশি খুশি হয়েছে। আমিও আমার মাকে এভাবে খুশি রাখি :)

শ্রীলা উমা  আমি বরাবরই একজন রাবীন্দ্রিক প্রেমিকা হতে চেয়েছিলাম

মহাগুরু

'মা ' পৃথিবীর সবথেকে ভালোবাসা,আস্থা,অধিকারের স্থান সন্তানের জন্য l  একমাত্র মা-ই বোধহয় সেই ব্যক্তি যিনি কখনো কোনো আশা করেন না কারো থেকে ,আর সন্তানের থেকে তার একমাত্র আশা খুশিতে ঝলমলে মুখ l  পৃথিবীতে বোধ হয় মা-ই একমাত্র ব্যক্তি যার জন্য উপহার কিনতে সন্তানকে চিন্তা করতে হয় না "পছন্দ হবে তো !" শাড়ি-কাপড় বাদে যদি অন্য কিছু দিতে চান তবে তার পছন্দগুলো একটু চিন্তা করুন তিনি যদি বই পড়তে ভালোবাসেন তবে প্রিয় লেখকের কিছু বই উপহার দিন,গল্পে গল্পে জেনে নিন কোন লেখক তার প্রিয় এবং সেই লেখকের কোন বইগুলো তার পড়া হয় নি l গান শুনতে ভালোবাসলে পছন্দের কোনো শিল্পীর গানের সিডিও দিতে পারেন l পুরোনোদিনের সিনেমাগুলো হয়তো তার সব সময় বা সুযোগের অভাবে দেখা হয়ে ওঠে নি,সেই সিনেমার সিডিগুলোও দিতে পারেন l এতেকরে একমুহূর্তে আপনি তার ফেলে আসা দিনগুলো তাকে ফিরিয়ে দেবেন l  অথবা আপনার যদি মনে হয় নাহ মাকে এই একই চশমার ফ্রেমে অনেক দিন থেকেই দেখছি ! তবে তাকে মানাবে এমন একটি চশমার ফ্রেমও হতে পারে মায়ের উপহার l মায়েরা নিজেদের সৌখিনতার দিকে তাকানোর ফুসরত কখনই পান না তাই সে দ্বায়িত্বটা আপনি নিতে পারেন মিষ্টি সুবাসের কোনো পারফিউম উপহার দিতে পারেন,বা আপনার সাধ্যমত মুক্তোর গয়না বা তার যত্নের গয়নাগুলো রাখার জন্য কোনো সুন্দর গয়নার বাক্স l তিনি যদি ঘর সাজাতে ভালবাসেন তবে ঘর সাজানোর কোনো জিনিসও উপহার দিতে পারেন l বাবা মায়ের বিয়ের ছবি বা শুধুই তাদের দুজনের প্রিয় মুহূর্তের কোনো ছবি সুন্দর ফ্রেমে বড় করে বাধিয়ে উপহার দিতে পারেন,এতে করে তিনি যে শুধুই মা নন তার শুধুই দায়িত্ব নেই কিছু ভালোবাসার মুহূর্তও আছে সেটা এক প্রস্ত খোলা হাওয়া হয়ে ফিরে আসবে তার জীবনে l  তবে আমি বলি কি যাই উপহার দিন তার সাথে বেশকিছু ভ্যারাইটির চকোলেটও উপহার দিন,সারাজীবন তো তারাই আমাদের হাতে চকোলেট তুলো দিয়েছেন খুশি মুখটা দেখার জন্য এবার আপনি দিন দেখবেন একটা ভুবন ভোলানো হাসি দেখবেন তার মুখে l  মোটের উপর যাই দিন ভালোবেসে দিন দেখবেন আপনার মায়ের মুখটা মিষ্টি হাসিতে ঝিকমিক করে উঠবে l 

Shahidul Islam Nahid  পাঠক, ভাবুক এবং একটি অনলাইন বুকশপের একজন ...

গুণী

কেকা ফেরদৌসীর রান্নার বই দেওয়া যেতে পারে... যাতে আসলেও ঐসব খাবার রান্না করে খাওয়া যায় কি-না, তা দেখা যাবে !!

আমরা অনেক সময়ই খেয়াল করি যে আম্মু বলে এই একটা সাদা পৃষ্ঠা দে তো বাজারের লিস্ট লিখব কিংবা একটু কাগজ কলম নিয়ে আয় হিসাব মিলাবো... একটা নাম্বার লিখতো তোর খাতায় কিংবা ফোনে নাম্বারটা সেভ কর তো...

একটু খেয়াল করলেই দেখা যাচ্ছে আম্মুর জন্য একটা ডায়রি থাকলে কিন্তু খারাপ হয় না, তাই না? আম্মুর অনেকগুলো ঝামেলা চুকে যাচ্ছে।

তাই এবারের ঈদে আম্মুর জন্য স্পেশাল গিফট একটি ডায়রি। 

Asem Ahmad  আমি একজন জ্ঞান পিপাসী।

জ্ঞানী

মা নিজে না খেয়ে স্বামী সন্তানদের জন্য হরহামেশা তা রেখে দেয়। নিজের স্বাস্থ্যের জন্য খেয়াল রাখে না.....!

মায়ের জন্য গিফট কেনা অনেক কঠিন কাজ...! তবে সহজ হয়ে যাবে যদি জানা যায় তার কি পছন্দ অপছন্দ। কারণ মায়েরা ছেলে-মেয়েরা যা ই গিফট করে না কেন তাতে কোন আপত্তি করে না যদি ওরা কষ্ট পায় বা ওদের বাজেট কম থাকে....

আমার আম্মাজান গত হয়েছেন প্রায় দশ বছর হতে চলেছে... তার জন্য সওয়াব রেসানি ছাড়া আর কিছুই যে দিতে পারছি না...

তবে যদি বেঁচে থাকতেন তাহলে তার পছন্দকে প্রাধান্য দিয়ে সেটাই আনার চেষ্টা করতাম।

"রাব্বির হামহুমা কামা রাব্বায়ানি সাগিরা"

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

ঈদে মায়ের জন্য ভিন্ন ধরণের গিফট কিনার ক্ষেত্রে এমন কিছু কেনা যেতে পারে যেগুলো মায়ের গৃহস্থলির কাজকে সহজ করবে। যেমন - রুটি মেকার, ব্লেন্ডার মেশিন। এছাড়া মায়ের পছন্দের কোন প্রসাধনী কেনা যেতে পারে। মা যদি বই পড়তে পছন্দ করে তাহলে ভালো কোন বই গিফট করা যেতে পারে।

Noman Ahmed  

জ্ঞানী

কাঠে খোদাই করে ঈদ মোবারক লিখা কোনো ফলক দিতে পারেন , অথবা আপনার মায়ের সাথে তোলা সুন্দর কোনো মুহূর্তের ছবি কাঠে খোদাই করা আছে এই রকম কোনো ছবি বা চাবির রিং দিতে পারেন। woodcurve pineapple নামক প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে এই ধরণের কাজ করিয়ে নিতে পারেন।

মনে করো, যেন বিদেশ ঘুরেমাকে নিয়ে যাচ্ছি অনেক দূরে।তুমি যাচ্ছ পালকিতে, মা, চ’ড়েদরজা দু’টো একটুকু ফাঁক করে।আমি যাচ্ছি রাঙা ঘোড়ার ‘পরেটগবগিয়ে তোমার পাশে পাশে’(বীরপুরুষ: রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর)

মাকে নিয়ে প্রতিটি সন্তানের মনে কতই না স্বপ্ন দানা বাঁধে। চারপাশের এই রঙিন পৃথিবী মায়ের চোখ দিয়েই তো প্রথম দেখা। একজন সন্তানের কাছে মমতা, আস্থা, শাসন, নির্ভরতা—এ সবই যেন ‘মা’ শব্দেরই প্রতিশব্দ। মায়ের কারণেই তো পৃথিবীর প্রতিটি দিন উপভোগ করা। সেই মায়ের জন্য বছরের একটি দিন বিশেষভাবে পালন করতে প্রতিবছর মে মাসের দ্বিতীয় রোববার পালিত হয়‘মা দিবস’। .বিভিন্ন দেশে নানাভাবে পালিত হয় মা দিবস। থাকে নানা আয়োজন। যেমন ইংল্যান্ডে এই দিনে বাড়িতে কেক বানিয়ে মাকে উপহার দেওয়ার রীতি প্রচলিত আছে। এ ছাড়া রেস্তোরাঁয় খেতে নিয়ে যাওয়া, কার্ড, ফুল, চকলেট ইত্যাদি উপহার হিসেবে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বেশ জনপ্রিয়।নিজের সন্তানের তৈরি কোনো হস্তশিল্প উপহার হিসেবে মায়েদের দারুণ পছন্দ। তবে সময়-সুযোগের অভাবে তা করা হয়ে না উঠলেও কোনো ক্ষতি নেই। একটা দিন হাতে রেখে একটু সময় নিয়ে বেরিয়ে পড়ুন।ঘর সাজানোর নানা উপকরণের পাশাপাশি পাট বা বেতের তৈরি টিস্যু বক্স, প্রতিদিনের টুকটাক হিসাব টুকে রাখার নোটবুক, মা চাকরিজীবী হলে খাদি বা ব্লকপ্রিন্ট করা কোনো কাপড় দিয়ে মোড়ানো চমৎকার অফিস ফাইল ইত্যাদি ভালো উপহার হতে পারে। মায়ের স্বাস্থ্যের কথা বিবেচনায় রেখে কিনে দিতে পারেন ভেষজ উপাদানে তৈরি চা এবং অন্যান্য খাবার। উপহার হিসেবে দেওয়া যেতে পারে মায়ের পছন্দের কিছু গান-কবিতা। ঘরে বা বারান্দায় সাজিয়ে রাখা যায়—এমন সুন্দর কিছু গাছও কিন্তু উপহার হিসেবে দারুণ।মায়ের হাতের রান্না খেয়েই তো বেড়ে ওঠা। মা দিবসে না হয় মাকে রান্নাঘর থেকে ছুটি দিয়ে মায়ের পছন্দের কোনো রেস্তোরাঁয় নিয়ে গেলেন। অথবা নিজেই রান্না করে মাকে চমকে দিলেন।মা দিবস উপলক্ষে আড়ং এ বছর নিয়ে এসেছে ভিন্নধর্মী নানা উপহারসামগ্রী। ক্রেতাদের জন্য রয়েছে উপহারও। তবে এই সুযোগ শুধু অনলাইনে কেনাকাটার বেলায়।ফ্যাশন হাউস সাদাকালোর পরিচালক তাহসিনা শাহিন জানালেন মা দিবস আর রবি ঠাকুরের জন্মদিন—এই দুই দিনকে এক করেই তাদের এবারের আয়োজন। যার মধ্যে থাকছে ‘মা’ লেখা আকর্ষণীয় কিছু মগ ও একপাশে ঝোলানো ব্যাগ।বিশেষ এই একটি দিনের পুরোটা সময় মায়ের জন্য বরাদ্দ রেখে, শুধু মায়ের সঙ্গেই সময় কাটান। মাকে জড়িয়ে ধরে বলুন, ‘ভালোবাসি, মা তোমাকে’। এটাই হবে মায়ের জন্য সেরা উপহার।

মাকে প্রতিদিন ‘ভালোবাসি’ না বলা গেলেও বছরের একটি দিনে অন্তত তার জন্য বিশেষ কিছু করা যেতেই পারে। বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন তারিখে পালন করা হলেও এই উপমহাদেশসহ বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশে মে মাসের দ্বিতীয় রবিবার মা দিবস পালন করা হয়। এই হিসেবে বাংলাদেশে এবার ৮ মে ‘মা দিবস’। শুধু একদিনই কেনো মাকে ভালোবাসা জানাবো?- এমন প্রশ্নের জবাব হতে পারে, মাকে তো সবাই প্রতিদিনই ভালোবাসি। তবে কতদিন তাকে এই কথা জানানো হয়! তাই এই দিনে সব সন্তানরা তাদের মাকে ভালোবাসার কথা জানানোর চেষ্টা করে।বর্তমান প্রজন্মের কাছে মা দিবস আর আগের প্রজন্মের কাছে মা-দিবস ও মায়ের জন্য উপহার নিয়ে কথা বলেন, দেশীয় ফ্যাশন ঘর ‘সাদাকালো’র কর্ণধার তাহসীনা শাহীন। তিনি বলেন, “আমরা মা দিবস পালন করছি ১০ থেকে ১৫ বছর ধরে। তবে আমাদের সন্তানরা জন্ম থেকেই এই দিবস পেয়ে আসছে। বর্তমান প্রজন্ম মূলত স্কুল থেকে মা দিবসের অনুপ্রেরণা পায়। প্রতিবছরই স্কুলে মায়ের জন্য ছোটখাটো উপহার বানানো, কার্ড বানানো, রচনা লেখা ইত্যাদি আয়োজন করা হয়ে থাকে। আমার সন্তানরা প্রতিবছরই এই দিনে স্কুল থেকে ফেরার সময় আমার জন্য কার্ড বা ছবি নিয়ে আসে।”“আমার সন্তান যদি আমাকে নিয়ে গল্প বা রচনা লেখে আমি তাতেই অনেক খুশি হই। তবে আমি যখন আমার মায়ের জন্য উপহার খুঁজি তখন ভেবে পাইনা কোন জিনিসটা তার প্রয়োজন। আর সেটা ব্যবহার করতে পারবেন। তাই আমাদের উপহারের তালিকায় উঠে আসে মগ, শাড়ি, বেড কভার বা ক্রোকারিজ।” বলেন শাহীন। মায়ের জন্য তার পছন্দের জিনিস বেছে নিতে পারেন উপহার হিসেবে। আর তাই প্রতিবারের মতো দেশীয় ফ্যাশন ঘরগুলো এরইমধ্যেই মায়ের জন্য বিভিন্ন উপহার দিয়ে তাদের পসরা সাজিয়েছে।‘আড়ং’ (www.aarong.com) আয়োজন করেছে বিশেষ প্রতিযোগিতা। আড়ং’য়ের অনলাইন থেকে যেকোনো কেনাকাটার পর সেখানে মা-কে উদ্দেশ্য করে বিশেষ লেখা পোস্ট করতে হবে। ৮ মে সন্ধ্যা পর্যন্ত যে কেউ অনলাইনে এই প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারবেন। এরপর সবগুলো লেখা যাচাই বাছাইয়ের ভিত্তিতে সব থেকে সুন্দর লেখাটি যার হবে সেই হবেন বিজয়ী। মায়ের সঙ্গে কক্সবাজারের মারমেইড বিচ রিসোর্টে তিন দিন, দুই রাত থাকার সুযোগ পাবেন বিজয়ী। ঢাকা থেকে কক্সবাজার যাওয়া এবং ফিরে আসার জন্য মিলবে নভোএয়ারের টিকেট।এছাড়াও বিভিন্ন গিফট শপ থেকে নিতে পারেন কার্ড, ফটোফ্রেম, অ্যালবাম ইত্যাদি। আরও দিতে পারেন কেক বা ফুলের তোড়া। চাইলে ওই দিন মাকে ছুটি দিতে পারেন রান্নাঘর থেকে। তাকে নিয়ে খেতে যেতে পারেন কোনো রেস্তোরাঁয়। মা দিবস উপলক্ষে শহরের বিভিন্ন হোটেল ও রেস্তোরাঁয় থাকছে বিশেষ আয়োজন।মায়ের জন্যে র্যা ডিসনের ভালোবাসাবিশ্ব মা দিবসে বাণিজ্যিক রাজধানীর প্রথম পাঁচতারা হোটেল র্যা ডিসন ব্লু চিটাগাং বে ভিউ ভিন্নধর্মী উদ্যোগ নিয়েছে। রোববার (৮ মে) মায়ের জন্যে স্পেশাল অফার থাকবে আন্তর্জাতিক চেইন হোটেলটির। ভোজনরসিকদের প্রিয় হয়ে ওঠা র্যা ডিসনের এক্সচেঞ্জ রেস্টুরেন্টে মা দিবসে ডিনার ব্যুফেতে সন্ধ্যা ছয়টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত চারটি সিট বুকিং দিলে মায়েরটি একেবারে ফ্রি। সঙ্গে থাকছে লাকি ড্র হিসেবে তিনটি পুরস্কার। সেগুলো হচ্ছে যথাক্রমে র্যা ডিসন ব্লুতে এক রাত থাকা, টপ ফ্লোরের স্কাইল্যান্ড রেস্টুরেন্টে দুজনের ডিনার এবং এক্সচেঞ্জ রেস্টুরেন্টে দুজনের ডিনার। র্যা ডিসন ব্লু চিটাগাং বে ভিউর সহকারী ব্যবস’াপক (জনসংযোগ) তাখরিন খান জানান, এক্সচেঞ্জ রেস্টুরেন্টে ব্যুফে ডিনারে জনপ্রতি খরচ পড়বে ২ হাজার ৯৫০ টাকা। সন্তানের বয়স যদি ছয় বছরের কম হয় তবে ফ্রি। ছয় থেকে ১২ বছর বয়সী সন্তানের জন্যে খরচ অর্ধেক। মূলত মায়ের প্রতি সম্মান জানাতে, ভালোবাসা জানাতেই এ আয়োজন। স্বামী-সন্তানসহ তিনজনের বুকিং দিলে একই টেবিলে মায়ের জন্যে আসনটি উপহার হিসেবে দেওয়া হবে। তিনি জানান, মা দিবসটি যাতে একজন মা নির্বিঘ্নে উপভোগ করতে পারে সে লক্ষ্যে ওই রাতে মায়ের সন্তানকে দেখাশোনার ভার নেবো আমরা। আমাদের টিমের অভিজ্ঞ সদস্যরা সন্তানকে সামলাবে। সন্তানদের আনন্দ দিতে থাকবে পপকর্ন স্টেশন, মুভি শো, কার্টুন ক্যারেক্টার, জাদু প্রদর্শনীসহ নানা আয়োজন।

শাকিল মুরাদ  আমি নতুন কিছু শিখতে ভালোবাসি

জ্ঞানী

অতি নিকটে এসে পড়েছে ঈদ। দায়িত্ব অনেক। কাকে কী উপহার দেবেন এই নিয়েই এখন ব্যস্ত। প্রিয়জন, আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধবকে কি দিয়ে এক ঝলকে খুশী করা যায় তাই নিয়ে ভেবেই সারা? পোশাক তো সবাই দিয়ে থাকে, তাই আপনি দিন ভিন্ন কিছু। সেজন্যই আজ আপনার থাকছে চমৎকার কিছু গিফট আইডিয়া-

বাবার জন্য : বাবা সেই মানুষ যিনি নিজের জন্য কিছুই না কিনে সারাজীবন আমাদের শুধু দিয়ে গেছেন। তাকে আর কবে আমরা কি দিতে পেরেছি! তাই খেয়াল করুন, কোন জিনিসটা তার খুব দরকার। হয়ত চশমার ফ্রেমটা বদলান না অনেক দিন হলো। অথবা আগে সখ করে হাত ঘড়ি পরতেন, এখন আর পরেন না। বাবার এমন অনেক দরকারি জিনিস আছে যা তার দরকারি হলেও তিনি কিনছেন না। সেই জিনিসটি তাকে এবার উপহার দিন।

মায়ের জন্য : মায়ের মতো কে আর আছে আপন আমাদের? নতুন সংসারে কত সখ বিসর্জন দিয়েই তিনি আমাদের প্রানপ্রিয় মা। মা যখন তরুণী ছিলেন কি করতেন ঈদে? কেমন পোশাক পরতে বা চুল বাঁধতেন? মাকে ফিরিয়ে দিন তার ফেলে আসা দিনের ঈদ। তেমন একটি শাড়ি বা খোপার কাটার সাথে সুরভিত প্রিয় ফুল দিয়ে মাকে উপহার দিন।

ভাই-বোনের জন্য : ঈদের মতো বড় উৎসব আর জন্মদিন ছাড়া উপহার তেমন দেয়া হয় না ভাই-বোনকে। তাই বোনকে জিজ্ঞেস করে জেনে নিন কসমেটিক্স, বই বা সিডির কি লিস্ট বানিয়ে রেখেছে সে! ভাই ও তাই। তাদের কাছ থেকে জেনেই ঈদের দিনে চোখে পড়ার মত চমৎকার একটি অনুসংগ কিনে চমকে দিতে পারেন কিন্তু!

সঙ্গী : আপনার প্রিয় সঙ্গীকেও তো দেয়া চাই ঈদের উপহার! নারী-পুরুষ ভেদে অবশ্যই উপহারও আলাদাই হবে। একটা সারপ্রাইজ দিন তাকে। ঈদের দিন খাওয়ান পছন্দের রেস্তোরাঁয়। একটা ভ্রমণ পরিকল্পনা করুন। ফাকা ঢাকায় রিকশা ভ্রমণ অথবা ঢাকার বাইরে কোথাও। সময় দিন। সময়ের বড় উপহার নেই। সাথে ফুল, চকলেট, ব্রেসলেট, মানিব্যাগ, টেডি বিয়ার ইত্যাদি যে কোন কিছু দিতে পারেন।

বন্ধু-বান্ধব : বন্ধু নেই এমন মানুষ ভাবাই যায় না। বন্ধু ছাড়া অনেকেরই আবার জীবর চলে না। তবে বন্ধুদের জন্য চাই আড্ডাবাজি। একসাথে কোনো সিনেমা দেখতে যেতে পারেন। সিনামার টিকেটের দায়িত্ব আপনার। অথবা আয়োজন করে ফেলুন একটা ক্যাজুয়াল পার্টি। গিফট যে শুধু বস্তুই হবে এমন কোনো কথা নেই। বন্ধু কি পছন্দ করে তার প্রাধান্য দিন।

ইউসুফ খান  সাধারণ মানুষ

গুণী

মাকে বলুন ভালবাসি। তাঁর জন্য ভিন্ন কিছু করুন। বাজার থেকে কিনে উপহার তো সবাই দেবে। আপনি না হয় ব্যাস্ত জীবন থেকে কিছু সময় বের করে নিজের হাতেই কিছু তৈরি করুন মায়ের জন্য। আমরা আপনাকে দিচ্ছি কিছু অন্যরকম আইডিয়া-

১। নানি-মা-মেয়েমায়ের পুরোনো কোন ছবি নিন, যেখানে আছে মা আর তাঁর মা মানে আপনার নানি। একই পোজে আপনার আর আপনার মায়ের একটা ছবি তুলুন। হোক তা সাদা-কালো। এক দেয়ালে ৩ প্রজন্মকে পাশাপাশি রাখুন। মায়ের মুখ কেমন আনন্দে উজ্জ্বল হয়ে ওঠে দেখুন।

২। গল্প বলা ডায়েরিএমন একটা ডায়েরি করুন যার পাতায় পাতায় তুলে আনুন মা আর আপনার স্মৃতি। ছোটবেলার ছবিগুলো যোগ করুন। তাঁর সাথে যোগ করুন কিছু ‘Sorry’ যা বলা হয় নি। যোগ করুন কিছু ‘ধন্যবাদ’, সেটাও নিশ্চয়ই বলা বাকি।

 ৩। ম্যাজিক মগঅনলাইন কেনাকাটায় ম্যাজিক মগ এখন সবার পরিচিতই বলা চলে। মায়েরা যেহেতু অনলাইনে তেমন অভ্যস্ত নয়, তাঁর জন্য কিন্তু এটা সারপ্রাইজ। কাল রং এর হবে মগটি। কিন্তু আসলে আপনার আর মায়ের ছবি লুকানো আছে মগের গাঁয়ে। মা যখনই সেতায় চা বা কফি খেতে যাবেন গরম পানি ঢালার সাথ সাথে ফুটে উঠবে ছবিটি।

৪। ফটো ব্লাঙ্কেটআপনার আর মায়ের স্মৃতি বিজড়িত ছবিগুলো স্ক্রীনপ্রিন্ট করে বসিয়ে নিতে পারেন কাপড়ে। তারপর কাপড়টি দিয়ে তৈরি করুন ব্লাঙ্কেট। সাথে জুড়ে দিতে পারেন মিষ্টি কোন কবিতা।

৫। কৃতজ্ঞতা দেয়ালবাসার একটা দেয়াল নির্বাচন করুন। বড় একটা বোর্ড লাগান। তাতে বসান হাতে বানানো কার্ড। কার্ডে লিখুন মায়ের গুনগুলোর কথা, তাঁকে কতটা ভালবাসেন তাঁর কথা। ব্যক্তি হিসেবে তিনি কতটা সুন্দর সেটা তুলে ধরুন। এই দেয়ালের আরেক্তা মজা হল, সারা বছরই যোগ করতে পারবেন নতুন কার্ড, নতুন ছবি।

৬। একটু পাশে থাকামায়ের দরকারি কিছু তাঁকে দিতে পারেন। ওভেন দিলেন, অথবা জুসার। যেটাতে তাঁর কাজ সহজ হয়। দৈনন্দিন ঘরের প্রচুর কাজ করেন আমাদের মায়েরা। আমরা সময়ও পাই না তাঁকে সাহায্য করার। তাই এভাবে সাহায্য করতে পারেন। যন্ত্র পরিশ্রম কমায় অনেকাংশে।

৭। শখ পূরণহয়তো মায়ের অনেক দিনের শখ কোথাও যাবেন। সেখানে নিয়ে যান তাঁকে। হয়ত অনেক দিনের ইচ্ছা বাইরে পুরো পরিবারের সাথে এক বেলা খাবেন। অথবা হয়ত তেমন কিছুই না, নিজের একটা ভাল ছবি তোলার শখও থাকতে পারে তাঁর। মনে করে দেখুন। তারপর আপনার সামর্থ্য অনুযায়ী যে কোন একটি শখ পূরণ করে দিন মা দিবসে।

৮। মা তাঁর ভালবাসার বিনিময়ে চান না কোনকিছুই। আপনি যে তাঁর জন্য ভেবেছেন, এতেই তিনি খুশী হবেন। তাই একটু সময় নিয়ে ভাবুন, আন্তরিকতা দিয়ে ছোট্ট কিছুই না হয় করলেন!
মায়ের সঙ্গে সারাদিন সময় কাটান। হয়তো ব্যস্ততার কারণে মাকে একদম সময় দিতে পারেন না। তাই এই দিনটা মায়ের সঙ্গে কাটানোর চেষ্টা করুন। সারাদিন মায়ের কাছাকাছি থাকলে মায়ের জন্য এটাই অনেক বড় উপহার হবে।
৯। গহনা সব নারীই পছন্দ করেন। মাকে সোনা বা হীরের গহনা দিতে পারেন। তাঁকে সাথে নিয়ে গিয়ে কিনে দিতে পারেন যাতে তাঁর পছন্দ হয়।
১০। বিভিন্ন ধরনের পাখি কিনতে পারেন মায়ের ঈদের দিনটিকে আরো স্পেশাল করার জন্য।

রেজওয়ানা শারমীন আশা  অন্যের ক্ষতির কারন না হয়ে নিজের মত চলি।

বিশারদ

গিফট হিসেবে মেয়েরা ম্যাক্স সময় শাড়িই পছন্দ করে।সেক্ষেত্রে মায়ের পছন্দ মাথায় রেখে শাড়ি দেয়া যেতে পারে।আবার মায়েরা বেশিরভাগ ধর্মানুরাগী হয়ে থাকেন।সেদিক দিয়ে জায়নামাজ,তসবী,হিজাব, ধর্মীয় বই,কোরআন,দেয়া যেতে পারে।বাজেট বেশি হলে ছোট্ট অর্নামেন্টস।

Sami Akter  

বিশারদ

ঈদে মায়ের জন্য স্পেশাল গিফট হিসেবে যেকোন কিছু যা মায়ের প্রয়োজন দেয়া যেতে পারে। এমন কিছু যা আপনার মাকে অন্যরকম খুশি দিতে পারে। মা যেন খুবই অবাক হয়ে যায়। যেমন আমার মাকে যদি একটা ভাল দেখে একটা ওড়না গিফট করি মা খুশি হবে। এরকম সব মায়ের প্রয়োজনই ভিন্ন। একটু ভেবে চিন্তে নিলেই হল।


অথবা,