ফল

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 ফল ও শাকসবজি কীটনাশক মুক্ত করতে কি করণীয়?

উত্তর দাও (১ টি উত্তর আছে )

*ফল* *শাকসবজি* *কীটনাশক*

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 ডায়াবেটিস রোগে আক্রান্ত রোগীদের জন্য কোন ধরণের ফলগুলো উপকারী?

উত্তর দাও (১ টি উত্তর আছে )

.
*ডায়াবেটিস* *ডায়াবেটিকরোগী* *ফল* *লাইফস্টাইলটিপস*

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 গর্ভাবস্থায় কোন কোন ফল খাওয়া জরুরি এবং কোন ধরণের ফল খাওয়া থেকে বিরত থাকা উচিত?

উত্তর দাও (১ টি উত্তর আছে )

*গর্ভাবস্থা* *ফল* *প্রেগন্যান্সি* *লাইফস্টাইলটিপস*

ঈশান রাব্বি: একটি বেশব্লগ লিখেছে

সহজলভ্য ফল আমড়া। আষাঢ়ের শেষ থেকে আশ্বিন মাসের শেষ পর্যন্ত আমড়ার ভরা মৌসুম হলেও প্রায় সারা বছরই পাওয়া যায় এ পুষ্টিকর ফলটি। তাই যেকোনো সময় খাওয়া যেতে পারে আমড়া।

তবে জীবানুর সংক্রমণ এড়াতে রাস্তার ধারের কাটা আমড়া না খেয়ে বাড়িতে গিয়ে কেটে খাওয়াই ভালো।

বাংলাদেশে দুই ধরনের আমড়া চাষ হয়। দেশি আমড়া ও বিলাতি আমড়া। তবে দেশি আমড়ার চাষ ইদানীং একেবারেই কমে গেছে। এর স্থান দখল করে নিয়েছে বিলাতি আমড়া। বিলাতি আমড়া দেশি আমড়ার মতো টক নয়। এটি খেতে টক-মিষ্টি স্বাদের। এতে শাঁস বেশি, আকারেও বড়। বিলাতি আমড়া কাঁচা খাওয়া হয়। বিলাতি ও দেশি দই’ধরনের আমড়া থেকেই সুস্বাদু আচার, চাটনি এবং জেলি তৈরি করা যায়। তরকারি হিসেবে রান্না করেও আমড়া খাওয়া যায়।

মুখে রুচি বৃদ্ধিসহ অসংখ্য গুনাগুন রয়েছে আমড়ার। পুষ্টি ও খাদ্যবিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, আমড়ায় প্রচুর পরিমান ভিটামিন সি, আয়ারন, ক্যালসিয়াম আর আঁশ আছে, যেগুলো শরীরের জন্য খুব দরকারি। হজমেও এটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। তাই তেল ও চর্বিযুক্ত খাদ্য খাওয়ার পর আমড়া খেয়ে নিতে পারেন; হজমে সহায়ক হবে।

আমড়ায় প্রচুর ভিটামিন সি থাকায় এটি খেলে স্কার্ভি রোগ এড়ানো যায়। বিভিন্ন প্রকার ভাইরাল ইনফেকশনের বিরুদ্ধেও লড়তে পারে আমড়া। অসুস্থ ব্যক্তিদের মুখের স্বাদ ফিরিয়ে দেয়। সর্দি-কাশি-জ্বরের উপশমেও আমড়া অত্যন্ত উপকারী।

শিশুর দৈহিক গঠনে ক্যালসিয়াম খুব দরকারি। ক্যালসিয়ামের ভালো উৎস এই আমড়া। শিশুদের এই ফল খেতে উৎসাহিত করতে পারেন। এছাড়া এটি রক্তস্বল্পতাও দূর করে। কিছু ভেষজ গুণ আছে আমড়ায়। এটি পিত্তনাশক ও কফনাশক। আমড়া খেলে মুখে রুচি ফেরে, ক্ষুধা বৃদ্ধিতেও সহায়তা করে।

এছাড়া আমড়ায় থাকা ভিটামিন সি রক্ত জমাট বাঁধতে সাহায্য করে। খাদ্যে থাকা ভিটামিন এ এবং ই এটির সঙ্গে যুক্ত হয়ে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে দেহকে নানা ঘাত-প্রতিঘাত থেকে রক্ষা করে।

প্রতি ১০০ গ্রাম ভক্ষণযোগ্য আমড়ায় ১ দশমিক ১ গ্রাম প্রোটিন, ১৫ গ্রাম শ্বেতসার, শূন্য দশমিক ১০ গ্রাম স্নেহ জাতীয় পদার্থ এবং ৮০০ মাইক্রোগ্রাম ক্যারোটিন আছে। এ ছাড়াও আছে শূন্য দশমিক ২৮ মিলিগ্রাম থায়ামিন, শূন্য দশিমক শূন্য চার মিলিগ্রাম রিবোফ্লাভিন, ৯২ মিলিগ্রাম ভিটামিন-সি, ৫৫ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম এবং তিন দশমিক নয় মিলিগ্রাম লৌহ। আমড়ার খাদ্যশক্তি ৬৬ কিলোক্যালোরি। খনিজ পদার্থ বা মিনারেলসের পরিমাণ শূন্য দশমিক ছয় গ্রাম

*আমড়া* *সুস্বাদুফল* *প্রোটিন* *ক্যালসিয়াম* *ফল*

দীপ্তি: একটি বেশব্লগ লিখেছে

দারুন রাধুনি আপনি, খুব মজা করে রান্না করতে জানেন । কিন্তু এর পরিবেশন যদি আকর্ষণীয় না হয় তবে কি আর রান্নার সার্থকতা থাকে। অনেকেই ফল ও সবজি পরিবেশনে বৈচিত্র্য আনতে চান। আর এই বৈচিত্র্য আনা যায় ফল ও সবজি শেপে ভিন্নতা আনার মাধ্যমে। এসব কাটাকুটোর আছে নানা কৌশল। সে কৌশলগুলোর আছে আবার নানা সুন্দর সুন্দর নাম। বিশেষ কোন যন্ত্রপাতির প্রয়োজন নেই শুধু ছুরি দিয়ে করা যায় এই কাটাকুটো।

♦ জুলিয়ান কাট
প্রথমে খোসা ছাড়িয়ে লম্বা স্লাইস করে সবজিটি (যেমন-গাজর) কেটে নিতে হবে। এই স্লাইসগুলোর পুরুত্ব হবে আনুমানিক ৩ মিলিমিটার। এবার একটি স্লাইসের একপাশ থেকে কোনাকুনিভাবে কাটা শুরু করে পুরো স্লাইসটিকে লম্বা লম্বা অংশে ভাগ করে ফেলতে হবে। প্রতিটি লম্বা অংশের দৈর্ঘ্য হবে ৩-৫ সেন্টিমিটার এবং প্রস্থ ৩ মিলিমিটার। এভাবে প্রতিটি স্লাইস কাটলেই হয়ে গেল জুলিয়ান কাট। ফরাসি ভাষায় ‘জুলিয়ান’ শব্দের অর্থ ‘চিকন ও লম্বা করে কাটা’।

♦ ডায়মন্ড কাট
প্রথমে শসা বা কোনো সবজির খোসা ছাড়িয়ে বেশ পুরু স্লাইস নিতে হবে। এবার এই স্লাইসগুলোকে তিন কোনা টুকরা করে কাটতে হবে। যে ত্রিভুজাকৃতির টুকরা তৈরি হবে, তাদের তিন দিকের দৈর্ঘ্যই সমান হতে হবে।

♦ ব্রানোসিয়া
গাজর,পেঁয়াজ বা যে কোন সবজি ১-৩ মিলিমিটার দৈর্ঘ্যে ছোট ছোট করে কাটতে হবে। সাধারণত গাজর, পেঁয়াজ, শালগম ইত্যাদি এভাবে কাটা হয়।

♦ জার্ডিনিয়ার
গাজর বা অন্য সবজি খোসা ছাড়িয়ে ৫-৬ সেন্টিমিটার করে টুকরা করতে হবে। এবার একটি টুকরার চারপাশ থেকে কেটে একটি চারকোনা অংশ তৈরি করতে হবে। এই চারকোনা অংশটি থেকে কয়েকটি স্লাইস কাটতে হবে। তারপর সেগুলোকে আবার চিকন করে কেটে নিন। টুকরাগুলোর পুরুত্ব হবে ১ সেন্টিমিটার।

ব্রুনাইজ
প্রথমে সবজির (যেমন-গাজর) খোসা ছাড়িয়ে সেটি থেকে ৩ মিলিমিটার প্রস্থ ও ৩ মিলিমিটার পুরুত্বের লম্বা অংশ কেটে নিতে হবে। এরপর লম্বা অংশগুলো থেকে ৩ মিলিমিটার দৈর্ঘ্যের ছোট ছোট অংশ কেটে নিলেই হয়ে গেল ব্রুনাইজ কাট।

♦ ম্যাসিডোনিয়া
এটি মূলত ডাইস করে কাটাকে বোঝায়। পেঁয়াজ, আলু, বা যে কোন সবজি খোসা ছাড়িয়ে সেটিকে ৫ মিলিমিটার দৈর্ঘ্যে এবং প্রস্থে কাটা হয়। এটি ব্রুনাইজ কাটের থেকে কিছুটা বড় হবে।

ওয়েজেস
টমেটো অথবা এ ধরনের কোনো সবজি বা ফলকে এভাবে কাটা যায়। একটি টমেটোকে প্রথমে অর্ধেক করে নিয়ে সেটিকে সমান পুরুত্বের তিনটি অংশে ভাগ করে কাটতে হবে। এবার বাকি অর্ধেকটা অংশকেও একইভাবে কেটে নিতে হবে।

*গৃহস্থালিটিপস* *ফল* *সবজি* *কাটাকুটি*

ইমরান নাজির লিপু: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 অ্যাভোক্যাডো ফলের পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জানতে চাই । এটি কোন দেশের ফল ?

উত্তর দাও (১ টি উত্তর আছে )

.
*অ্যাভোক্যাডো* *ফল* *বিদেশিফল* *পুষ্টিগুণ*
ছবি

আমানুল্লাহ সরকার: ফটো পোস্ট করেছে

দেশীয় ফল গাব

কে কে খেয়েছেন।

*ফল* *গাব*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★